করোনা পরবর্তী প্রযুক্তি নির্ভর কর্মসংস্থান তৈরীতে কাজ করছে সরকার

আকাশছোঁয়া ডেস্ক : তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি বলেছেন, করোনা পরবর্তী সময়ে বিশ্বের কর্মসংস্থান হবে প্রযুক্তি নির্ভর। এই কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে দেশের যুব সমাজকে সম্পৃক্ত করে তাদের সুযোগ তৈরীতে কাজ করছে সরকার। তৈরী হচ্ছে ভার্চুয়াল বিশ্ববিদ্যালয়।

প্রতিমন্ত্রী ২৫ জুন বৃহস্পতিবার জেলার সিংড়া উপজেলা কোর্ট মাঠে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠির মাধ্যমিক পর্যায়ের ৪০ জন বালিকা শিক্ষার্থীদের মধ্যে সাইকেল প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। খবর বাসসের।

প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতি উত্তর সময়ে বিশ্বে কর্মসংস্থানের প্রেক্ষাপট বদলে যাবে। কর্মসংস্থান হবে প্রযুক্তি নির্ভর। দেশের সাড়ে চার কোটি শিক্ষার্থীকে প্রযুক্তি নির্ভর কর্মসংস্থানের উপযোগী করে তুলতে সরকার কাজ করছে। ভার্চুয়াল ইউনিভার্সিটি অফ ম্যানেজমেন্ট এন্ড মাল্টিমিডিয়া ইনোভেশন স্থাপনের পরিকল্পনা করেছে সরকার। আগে থেকেই দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে মাধ্যমিক পর্যায়ে তথ্য প্রযুক্তি বিষয়কে বাধ্যতামূলক করে প্রতিষ্ঠানিক শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাবের মাধ্যমে প্রযুক্তিতে শিক্ষার্থীদের দক্ষতা অর্জনের সুযোগ করে দিয়েছে সরকার।

প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, করোনাকালীন সময়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। শিক্ষার্থীদের পড়াশুনা অব্যাহত রাখেতে সংসদ টেলিভিশনের মাধ্যমে ইতোমধ্যে পাঁচ হাজার ৬২১টি ক্লাস নেয়া হয়েছে। দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ৪০ লাখ শিক্ষার্থীর জন্যে ডিজিটাল ক্লাসের ব্যবস্থা করা হচ্ছে- যার মাধ্যমে পাঠগ্রহণ ছাড়াও শিক্ষার্থীরা থিসিস পেপার জমা দেয়ার মত কাজ করতে পারবেন। করোনাকালীন সময়কে কাজে লাগিয়ে প্রযুক্তি দক্ষতা অর্জনের জন্যে শিক্ষার্থীদের প্রতি আহ্বান জানান প্রতিমন্ত্রী।

প্রতিমন্ত্রী পলক একই সাথে পারিবারিক কৃষির আওতায় সব্জি পুষ্টি বাগান স্থাপনের লক্ষ্যে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মধ্যে বিনামূল্যে সব্জি বীজও বিতরণ করেন।

উপজেলা অতিরিক্ত কৃষি কর্মকর্তা শারমিন সুলতানা জানান, উপজেলার ৩৫২ জন কৃষককে তাদের বাড়ির আঙিনায় সব্জি চাষে উদ্বুদ্ধ করতে আট প্রকার সব্জি বীজ প্রদান ছাড়াও সব্জি বাড়ান পরিচর্যা, বেড়া ও জৈব সার বাবদ জনপ্রতি এক হাজার ৯০০ টাকা করে বিকাশ একাউন্টের মাধ্যমে প্রেরণ করা হবে বলে।

একই মাঠে প্রতিমন্ত্রী ‘জলবায়ুর বিরুপ প্রভাব মোকাবেলায় দেশব্যাপী ব্যাপক বনায়নের লক্ষ্যে উপজেলায় মোট ২৫ হাজার চারা বিতরণ করা হবে বলে জানান জেলা অতিরিক্ত বন কর্মকর্তা সত্যেন্দ্র নাথ সরকার।

পরে প্রতিমন্ত্রী পলক উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা ৫০টি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২৪ লাখ টাকার অনুদানের চেক বিতরণ করেন এবং উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল ভবন নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন। সবগুলো অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছা. নাসরিন বানু।

 

সর্বশেষ সম্পাদিতঃ জুন ২৫, ২০২০ সময়ঃ ৭:১২ অপরাহ্ন